বাকার বর্ণনা / মুসা আল হাফিজ

এক.
আছি আরণ্যে, শিয়রে মৃত্য,
শীতল নিঃশ্বাসে থমথমে চারপাশ

গাছের ডালপালায় দুঃস্বপ্নের পাতা নড়ছে!

দ্রবীভ‚ত পর্বতে ঝাঁপিয়ে পড়ে উপেক্ষার আষাঢ়,
স্বপ্নের চারাবনে দৌড়ায় অদম্য উন্মাদ,
প্রকৃতির গলিত পূজে ভরে যাচ্ছে
ইথারের ঝিল!

আর আমি এক দিগন্তবিস্তৃত বৈভব
কোনো মরমী সবুজে-
মানুষের পরাজয় অস্বীকৃতির নানা উপমায়
চাঁদের ঘর-দোরকে করে ফেলি
কবিতার মসনবী!

লবণাক্তনির্জনে বহুবর্ণ কবিতা ঝরায় ছন্দের স্বাদুশিষ,
রমণীরা ক্ষুধার জবাব পরিপাক করতে উনুনে যাকে ভাঁজে
মৌ মৌ মশলা। বর্তনে তার মাধুরী ঢাললেই বৃক্ষেরা
জ্যোৎস্না, জ্যোৎস্না বলে হেসে ওঠে।

আমার শব্দ তবে পৃথিবীকে জ্যোৎস্না খাওয়াবে?

দুই.
পাপ-পুণ্য আসে,আম্মা আম্মা বলে সেমেটিক বিশ্বাসের
জড়িয়ে ধরি বুক। আয়ুর সর্পের তাড়া, ঔদ্ধত্যের ধমক ভেঙে
আমিতো সেই পাখি,কবরের কঙ্কর ভাসাই হৃদিরন্দ্রের
শরবতে। আলোর পাখা ছড়িয়ে জনতারে টেনে তুলি অসীম উর্ধ্বতায়।
সত্যের দাবার গুটি আমি,পৃথিবীতে
চালাচালি হয়, আমাকে তো তিনিই পাঠিয়েছেন। তার মায়া ভুলেছি কভু?
উজ্জল ঘাসের সারি, মেঘের ধুলোবালি প্রগলভ দোয়েলের মতো
সাহস সাহস রবে উচ্ছ্বল। নাভির দরজা খোলে কস্তুরিগন্ধ ছড়ায় হরিণী
পুস্পের সোনালি দুধ অলিরা ছিটিয়ে দেয় আমার চোখে-মুখে
আনন্দের তরঙ্গে থরথর পৃথিবী আকাশ

কিন্তু অদূরেই মৃত্যুর চাবুক ঘুরে সপাং সপাং

তিন.
দুঃসহ হাওয়ার নৃত্য তুমুল গমকে উধাও
আমার মৃত্যুর ছবি নিস্তব্ধ শিলার বুকে গূঢ়জলরং
প্রত্যন্তপাতার গীতে চুইয়ে পড়ে শোকাশ্রু সফেন
বাতাসের ঢেউয়ে ভাসে পর্বতের পাঁজরের গুড়া,
তখনি রক্তে ওঠে বাকার তুফান,শোনিতে গর্জন ওঠে
আনাল হকের। জাগর প্রাণের পাখি উড়ে উড়ে
নিয়ে আসে খুশবু সতেজ
‘খুশবু মাখবো না’ বললাম-‘যাও তরুলতার হাতে হাতে
দিয়ে এসো’আমি যেনো ধ্যানে রই
আত্মার উৎসবে মৃত্যুর আওয়াজ উঠলে বলবে আমায়
আমি তাকে ছুঁড়ে মারবো সত্তার তীব্রতীর

মৃত্যুর বুকে জীবন তার পা রাখলেই পৃথিবীর বিজয় উৎসব

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s