সিলেবাস / সাইফ আলি

নীল দাগে তার আকাশ ছিলো চেনা
সবুজ দাগে বন,
লাল দাগে সে চিনতো গোলাপ কুঁড়ি
শাদাতে কাশবন।

হলুদ রঙে আঁকতো মায়ের শাড়ি
খোপায় দিতো বকুল ফুলের মালা
প্রজাপতি আঁকতে গেলেই
নানান রঙের পালা।

রঙের উপর রঙ চড়িয়ে খোকা
আঁকতো পাহাড়, সাগর, নদী, ফুল;
হঠাৎ কে যে ভুলিয়ে দিলো সব
কেউ বলে সে ধরেছে স্কুল!

এখন খোকা সে সব ছবিই আঁকে
যে সব ছবি সিলেবাসে থাকে।

Advertisements

ম্যাজিক / সাইফ আলি

মুঠো খুলতেই ম্যাজিক
মুঠো খুলতেই ফাও
দেখি দেখি একবার সকলেই একসাথে
মুঠো খুলে দাও।

মুঠো করে কেউ কলার
কেউবা আবার ডলার
কঠিন কথা বলার
পণ করেছো,
আগে ছাড়ো, দ্যাখো ম্যাজিক
দ্যাখো; দেখেছো?

প্রার্থনা / সাইফ আলি

সভ্য ডাঙার অসভ্যতায় শরীর দোলাই
মিষ্টি কথার খলখলানি দারুণ লাগে
সবাই সবার আকাশ মাপে নিজের মতো
তবুও ঠিকই তারার মতো কষ্ট জাগে?

কোথায় গেলে কোন সাগরে কাটলে সাতার
লবনজলে কষ্টগুলো ধুয়ে ফেলা যায়;
নিজকে আবার শিশুর মতো অপরাধহীন
ডান-বামহীন সরল পথের অগ্রভাগে
খুঁজে পাওয়া যায়?

অসভ্য এই সভ্য আমার বুকের খবর
কেউ কি জানে তুমি ছাড়া?
পোড়াও প্রভূ আঘাত করো এক জীবনে
তবুও তোমার দিদার লাভের তৌফিক দাও,
মুমিন বানাও।

পায়রার পাখনায় চোখ / সাইফ আলি

ছায়াদেরও ব্যামো হয়
রোগা হয় ফিনফিনে পর্দার মতো…
ছায়াদেরও জ্বর হয়, সর্দি-কাশি হয়;
খুক খুক কাশে।
আজকাল শরীরটা ভালো নেই,
রোদপোড়া ছায়ার ব্যারাম;
নিজেকে আড়াল কোরে রাখে,
আলো ভয়, কালো ভয়,
আরো কতো ধুপছায়া ভয়ে
নিজেকে কুকড়ে রাখে নিজেরই ভেতরে।

রাত এলে ঘুম গুম
চোখ পোড়া চটচটে ঘ্রাণে
পানি থাকে প্রানে??

তোমরা আগুন নিয়ে খেলো
ফাগুনের খবর সে দূরে,
পাখিগুলো গান গায়
কিরকম ভয়ার্ত সুরে।

তখন কেবল শুধু
পায়রার পাখনায় চোখ,
আর সব মুছে যাক, ফ্রেমে
একজোড়া এর ছায়া হোক।

অঝর বৃষ্টি হয়ে নামুক কবিতা / সাইফ আলি

:কবিতার মেঘ এলো
এলোমেলো
উড়লো খানিক
নাগরিক প্রেমে তবু বৃষ্টি এলোনা।

ছাতা হাতে বের হলে তুমি
ভয় পাও? বৃষ্টি মাখোনা?
কবিতারা ঝড় হয়ে এলে
তখন?

:এখন কবিতা শুধু রোদ
দারুণ কঠিন তাপে হৃদয়ের জমাজনি চৌচির ফেঁটে,
তোমার পকেটে যদি কবিতার মেঘ থাকে প্রিয়
মেলবোনা ছাতা।

‘এবার বৃষ্টি হয়ে নামুক কবিতা
অঝর বৃষ্টি হয়ে নামুক কবিতা…’

সমসাময়িক / সাইফ আলি

প্রকাশ্য চুম্বনে তারা আজ স্বীকৃত সাহসী যুগল!
এ কেমন বিচার হে প্রিয়!!
এর আগে বহুবার এখানেই টি এস সি মোড়ে
প্রকাশ্য সঙ্গমে মেতেছিলো নিরিহ কুকুর…

তাদের তো ঘর নেই; নেই কোনো পোশাকের বেড়া,
বিবেকের, বোধের শাসন;
তারা তো কখনো এসে সভ্য কুকুর বলে
নিজেদের করেনি জাহির!

সাহসের তারিফ তো করবোই,
নুরুর সাহস আছে, রাসেদরা সাহসী তরুণ;
অধিকার আদায়ের সংগ্রামে ফুঁসে ওঠা প্রাতিটি যুবক।
তোমরা ভীরুর দলে, বিবেকের মুখোমুখী হতে
মননের মুখোমুখী হতে
তোমাদের ভয় হয় জানি।

বকুলের ঘ্রাণ / সাইফ আলি

খুব বেশি কাছাকাছি এলে
নাকে লাগে বকুলের ঘ্রাণ
চোখ বুজে দম নিই
যতটা বাতাস আটে ছোট্ট এ বুকের পাঁজরে,
ফজরের নামাজের পর
আমাদের রাস্তার মোড়
মজে থাকে বকুলের প্রেমে।

খুব বেশি কাছাকাছি এলে
মনে হয় আমি
মাত্র নামাজ শেষে
দাঁড়িয়েছি এসে
বকুলের ঘ্রাণ নিতে
আমাদের রাস্তার মোড়ে
বেশিক্ষণ থাকবো না,
চলে যাবো; বুকে নিয়ে তোমার সুবাস!