অনুকবিতা ৪৪ / সাইফ আলি

কোন কারণে রাগ করো মন
কোন কারণে কষ্ট পাও
ইচ্ছে করেই ভাসাও যখন
উল্টোস্রোতে তোমার নাও।

০৪.০৬.২২

প্রিয়তম ভুলে যাও / সাইফ আলি

প্রিয়তম ভুলে যাও কেউ এক পথ রচেছিলো
তুলতুলে ঘাস আর হৃদয়কে দুই ভাগ কোরে,
ভুলে যাও কেউ এসে কোকিলের মতো
গান ধরেছিলো খুব তোমাদের কাকের শহরে।

২৭.০৪.২২

সন্দেহ / সাইফ আলি

সন্দেহ পুষে রেখে ক্যানো তুমি হাসো,
সত্যি বলোতো প্রিয়- বলো ভালোবাসো?

সন্দেহ বড়ো বাজে কাটা
খুব বেশি ভোগাবে তোমাকে;
অদৃশ্য আগুনের শিখা
দাউদাউ পোড়াতেই থাকে।

২৪.০৪.২২

অনুকবিতা ৪৩ / সাইফ আলি

আমি পাখিদের বস্তিতে
শুনি পরাধীনতার গান,
আর কারাগারে কারাগারে
করি স্বাধীনতা সন্ধান।

২৩.০৪.২২

অনুকবিতা ৪২ / সাইফ আলি

ঘরে ফিরতেই ডাকে পথ
পথে নামতেই ডাকে ঘর
আমি ঘর সাথে নামি পথে
আর পথ নিয়ে ফিরি ঘরে।

২৩.০৪.২২

অনুকবিতা ৪১ / সাইফ আলি

ঝরাপাতা ঝড়কে মানে বন্ধু তারও
ক্যানো মন বলতে পারো?

১৭.০৪.২২

অনুকবিতা ৪০ / সাইফ আলি

অতোটা নিজেতে ডুবো না মন
যতটা ডুবলে মৃত্যু হয়,
এখন বড্ড দুঃসময়।

১৬..০৪.২২

অনুকবিতা ৩৯ / সাইফ আলি

এখানে এখন ঝড়ের বাতাস, ঝড়;
উঁচু বৃক্ষের নোয়ানো মাথার তাজ
ছুঁয়েছে জমিন। আমরা তবু অনড়,
খুলে খুলে দেখি বাতাসের কারুকাজ।

২৬.০৩.২২

অনুকবিতা ৩৮ / সাইফ আলি

তবুও যখন তুমি আকাশের কাছে যেয়ে নীল হয়ে যাও
রঙিন মেঘের তাপে একা একা সন্ধ্যায় নিজেকে পোড়াও
আমি এক পথভোলা ছোট্ট রাখাল হয়ে তোমাতে হারাই,
বলো তুমি জল হও, মেঘ হও, রোদ হও কার ইশারায়?

১৬.০৩.২২

যন্ত্রমানব / সাইফ আলি

যন্ত্রমানব যন্ত্রদানব হৃদয় কি তা বোঝো?
বুকের বামে হাত রাখোতো, একটুখানি খোঁজো।
মিললে ভালো, না মিললেও চলে;
এই শহরে এখন সবাই হৃদয়হীনের দলে।

০৪.০৩.২২