সেও ঠিক ঝাপটাতো ডানা / সাইফ আলি

হয়তো সে জেগেছিলো আরো কিছু রাত
হয়তো সে গুনেছিলো আরো কিছু দিন
এরপর একদিন ধুপছায়া বেলা
সাঙ্গ করে জীবনের সব ছেলেখেলা
একান্তই একাকিত্বে হয়েছে বিলীন।

তুমি আজ এতোদিন পর
কোথা থেকে উড়ে এসে পাখি
জানতে চাও পুরোনো খবর
আরো কিছু অপেক্ষার প্রহর
রয়েছে কি বাকি?

পাখি তুমি ডানা ঝাপটাও
সেও ঠিক ঝাপটাতো ডানা
অথচ সে কোনোদিন ছুতে পারতো না
তোমার ঐ মেঘদল আপন সীমানা।

Advertisements

ওগো বিদেশীনি / সাইফ আলি

12472255_1098796536837546_1036671694928734805_n
কাঁটাতারে বিঁধে আছে শ্বেত কবুতর
বুকে তার ফেলানীর ঘ্রাণ
চোখে তার মৃত্যূ বিভিশীখা;
খসখসে আমার দু’হাতে
তুলি তার মখমল দেহ-
গোধুলি রঙিন চোখে অন্য পাড়ে দেখি
তুমি আছো চেয়ে;
ওগো বিদেশীনি
ভালোবাসি বলতে তো সীমানা দেখিনি।

অথচ এখন দেখো রক্তমাখা হাত
হাতে রাইফেল
তাক করে বসে আছি তোমার দিকেই
ভালোবাসি বলে তুমি যদি কোনোদিন
কাঁটাতার দিতে চাও পাড়ি
আমার বুলেটে বিঁধে গোধুলি রঙিন
করে নিও পরনের শাড়ি।

আরেক ফাগুন / সাইফ আলি

জীবন যখন হাট-বাজারে থমকে গেছে
তখন পাখি কি গান শোনাও;
ঘুমহারা এই একলা রাতে
জাগরণের স্বপ্ন বোনাও!!

রাত হয়েছে তবুও যখন ঘুম আসে না
দ্রোহের বীষে
তখন তুমি খামচে ধরে চোখের পাতা
বললে- সবাই ঘুমিয়ে কেনো;
বললে – সবাই আত্মহারা।
আজকে নতুন ডাক এসেছে। কোথায় কিসে
করলো এমন পাগল পারা-

বললে হঠাৎ – এ লাশ বেঁচার সওদা থামাও
দু’চোখ থেকে অন্ধকারের পর্দা নামাও…
আগুন জ্বালাও ; জ্বালাও আগুন
ফের জেগেছে আরেক ফাগুন।

হঠাৎ দিলো ডুব

গাছটা তখন দুলছিলো সেই বাতাসে
ফুলছিলো ঢেউ খুব;
ঢেউ চিরে এক হঠাৎ ভাসা পাতা সে
হঠাৎ দিলো ডুব।

ঝড়ের পাকে খড়ের মতো সাথীরা
দল হারানো হাতিরা
কোথায় কে যে হায়..
শাহবাগের ঐ চত্তরে আজ
কারোর দেখা নাই।

মাঝে মাঝে জটলা পাকায় ছন্নছাড়া ঘূর্ণীতে
এখন তারা কেউ রাজি না পরস্পরের সুর নিতে।

ভুলের মাশুলে কতটা পুড়বে দেশ

ভুলের মাশুলে কতটা পুড়বে দেশ
কতো ইতিহাস
কতো কাসুন্দি
কতো মশলার ঝাঁঝে
আমরা বাঁচবো এ রাজনীতির মরা শামুকের খাঁজে
তোমরা বলবে বেশ………

তোমাদের ছেলে বিদেশ পড়ুয়া
গেরুয়া বর্ণ গা
আমরা না হয় খালে বিলে ঝিলে
কানা বগিদের ছা-

তবে বলে রাখি পোড়াতে পোড়াতে
বানালে কয়লা কালো
বাতাসে শ্লোগানে কাঠ-খড়ি থেকে
দ্বিগুন জ্বলবো ভালো।

কি এক অদ্ভুত অহংকার…

কি এক অদ্ভুত অহংকার তোমাকে পেয়ে বসেছে
পাহাড়ের মতো সিংহাসন গেড়ে বসতে চাচ্ছো পৃথিবীর বুকের উপর
পাড় ভাঙা নদীটার মতো কি এক অদ্ভুত জোয়ারে ভাসিয়ে নিতো চাচ্ছো আবাদি জমিন
একের পর এক শহর, বন্দর-বসতি তোমার আগুনে পুঁড়ে ছাই হয়ে যাচ্ছে
এ কোন দাবানল খেলায় মত্ত হলে তুমি!

অথচ তোমার হাতেই বেড়ে ওঠার কথা ছিলো সবুজ বৃক্ষের
তোমার ছোয়ায় দুলে ওঠার কথা ছিলো ফসলের মাঠ
তোমার দৃষ্টিতে ভালোবাসা কাম্য ছিল জানো
সরণার্থী শিবির নয়; তোমার হাতেই গড়ে ওঠার কথা ছিলো স্বপ্নের বসতি…

তুমি কি ভুলে গেলে-
পরবর্তি নিঃশ্বাসের লাইসেন্স তোমার অধিকারের বাইরে;
তোমার একান্ত হৃৎপিন্ডটাও জানতে চাবে না তোমার শেষ ইচ্ছের কথা!!

অসমাপ্ত গানের সুর ধরে

অসমাপ্ত গানের সুর ধরে
আর কতো কথা পাবে প্রাণ
মিথ্যে আশার বুলি আর কতো ভাষায় অনুদিত হবে…
আর কতো তালে মিলে উঁচু স্বরে গেয়ে যাবো
মানুষে মানুষে মহা প্রণয় উপাখ্যান।

সুরের পাগল সব মর্ম বোঝে কে
কথা সবই কথা থাকে
মানুষ পশুতে…………….

অপূর্ণতার পূর্ণতা নিয়ে / সাইফ আলি

যদি অপ্রাপ্তি হয় প্রাপ্তির আকাঙ্খা
তবে অপূর্ণতার পূর্ণতা নিয়ে চলতে আমি রাজি
আমার মাথাটা প্রাপ্তির ভারে নুয়ে পড়লে
মনটা পরিপূর্ণ হয়ে গেলে
আমি তো আর মাথা উঁচু করে দাড়াতে পারবো না
তোমাদের সামনে।

আমার কাঁধ থেকে সমস্ত প্রাপ্তির ভার সরিয়ে নাও
আমাকে নিস্ব করে দাও
আমাকে শূন্য করে দাও
আমি আবার মাথা উঁচু করে দাড়াই;
অপূর্ণতা আমাকে তাড়া করুক
আমি ভারশূন্য এগিয়ে যাই আমার লক্ষ্যে।

আজকে আমার আকাশ দেখার দিন

তুমি তো আমার পালক দেখেছো উড়াল দেখোনি মাগো
আজকে তোমার মায়ার ছায়াতে বেধোনা আমার পাখা
আমিও এখন উড়তে শিখেছি তোমার মতোই একা
আকাশটা তার বিশাল বুকের জমিন দিয়েছে মেলে।

আজকে আমার আকাশ দেখার দিন-
আজকে আমার নিজেকে চেনার দিন-

দু’পাখা আমার চঞ্চল বড় বাতাস কাঁপাতে চায়
মেঘের সাগরে নিজেকে ভাসাতে ব্যকুল হয়েছে মন
দু’ঠোঁট আমার প্রথম শিকারে ব্যর্থ হবে না দেখো
আজকে আমার প্রথম উড়াল নিজেকে চেনার দিন।