বুক খুলে দাও বাতাস লাগুক/ সাইফ আলি

একটা পাখি রোদ মাখে না গায়ে
অবশ এবং পাথর ডানার দায়ে
কেউ বাসে না ভালো।

রঙিন ডানায় চোখ জুড়ানো মায়া
কিন্তু পাখির ছায়া,
কেউ দেখেনি আজো!

পাখির ঠোঁকে ঠুকরে খাওয়ার ভয়
ধরতে কিছু নোখের পরাজয়!

বুক খুলে দাও বাতাস লাগুক
বাতাস লাগুক হুহু…
৮ই ফাগুন হঠাৎ পাখি
ডাকলো কুহু কুহু!

০৬.০৩.২২

করিম চাচা / সাইফ আলি

এক হালি দাঁত চোয়ালে
করিম চাচার গোয়ালে
দুইটা গাভী দুইটা বাছুর
দুই কেজি দুধ দোয়ালে
কিনবে সাধের তোয়ালে।

একটা দাঁতে পোক লেগেছে
দাঁতটা এবার খোয়ালে?
ভাবতে গিয়ে দৃষ্টি কাড়ে
নদীর পাকা বোয়ালে;
হাত উঠে যায় চোয়ালে।

দুধের সাথে জল মিশিয়ে
বেচলে চাচার হিসাবে
বোয়াল নাহোক খোলসে-পুটি
জল কি তবে মিশাবে?

করিম চাচা তওবা কাটে
হারাম রুজি! মোটেও না।
বছর ঘোরে করিম চাচার
বোয়াল পাতে জোটেও না।

এক হালি দাঁত চোয়ালে
করিম চাচার গোয়ালে
চারটা গরু চারটা বাছুর
সঙ্গে নতুন তোয়ালে।

০২.০৩.২২

পাখি এবং খাঁচা / সাইফ আলি

এখান থেকে ছয়টা বাড়ি পরে
একটা শিশু পাথর জমা করে,
পাথরগুলোর নাম দিয়েছে গুটি
তার সাথে রোজ ইচ্ছে পাথর খুটি।

তিন বাড়ি পর ছোটোন বলে কথা
তার সে ভাষা সর্বজনীন বটে!
কেউ বোঝেনা, না বুঝলে তাও শোনে
তার কবিতা সারা পাড়ায় রটে।

আর যে খোকা বাদাম বেচে মোড়ে
বাদাম বেচে, পাথর খোটে, জমায়;
তার দু’চোখে পাখি এবং খাঁচা
তার প্রতিদিন অন্যরকম বাঁচা।

০১.০৩.২২

নতুন এক মাত্র, মে-জুন ২০২২ সংখ্যায় প্রকাশিত

দোয়া / সাইফ আলি

হাতের মুঠোয় পাঁচটা আঙুল
চোখের আরাম, আশার আলো;
রক্ত আমার, হৃদয় আমার
আল্লা তোকে রাখুক ভালো।

ভোগের সমাজ তোর দু’চোখে
হয়না যেনো রূপের রাণী,
বুকের মাঝে বাজতে থাকুক
সমর্পণের সত্য বাণী।

অন্য ঠোঁটের হাসির রেখায়
বাড়ুক তোর ঐ চোখের জ্যোতি,
পরের ক্ষতি মানেই বুঝিস
সবচে আগে নিজের ক্ষতি।

ইহকালের ক্ষণস্থায়ী
এক জীবনের মূল্য দিয়ে
নিস কিনে তুই অনন্ত সুখ;
যাস সেখানে আমায় নিয়ে।

১৯.০৮.২১

ভাল্লাগে তাই / সাইফ আলি

হাসতে আমার ভাল্লাগে তাই হাসি,
হাসলে সকাল শিশির দানায়
ছড়িয়ে পড়ে মুক্তো রাশি রাশি।

ছুটতে আমার ভাল্লাগে তাই ছুটি,
ছুটলে ভ্রমর গুনগুনিয়ে
মিষ্টি সুরে গান শুনিয়ে;
ফুলকলিরা হেসে হেসে খায় যে লুটোপুটি।

বাসতে ভালো ভাল্লাগে তাই বাসি
পণ করি এই, ভালোবেসেই থাকবো পাশাপাশি।

০৩.০২.২০
কিশোর পাতা মে ২০২০ এ প্রকাশিত