তোর খোলা চুলে ঝুলে যাওয়া বিকাল / সাইফ আলি

তোর খোলা চুলে ঝুলে যাওয়া বিকাল
আর চারু নখে শোভা মেহেদীর লাল
তুই ভালো থাকিস আর ভালো রাখিস তোর দিন
তোর কুড়েঘর হোক রঙিন।।

তোর ভেজা চোখে ঝুলে থাকে আকাশ নীল
আর আঙুলের ফাঁকে ঝোলে অন্তমিল!
যদি হৃদয়টা বুঝে নিয়ে দেনমোহর
তুই অনুমতি দিস হাটি সঙ্গে তোর।।
অন্তহীন…

তোর ধীর পায়ে হেটে চলা ছন্দময়
যদি আমার এই পথ ধরে বন্ধ হয়!
তবে সময়টা হবে খুব যন্ত্রনার
তুই শিখেছিস কি এমন মন্ত্র কার।।
এই রঙিন…

০৪.০৫.২০

তুমি অবাক চোখে প্রশ্ন করো / সাইফ আলি

তুমি অবাক চোখে প্রশ্ন করো
আমি খুঁজি কারে,
বলোতো কাজল ভরা চোখ দিলো কে
তোমার অধিকারে!!
আমি হন্যে হয়ে খুঁজে বেড়াই
তোমারই স্রষ্টারে।

তোমার ঐ কোমল কপোল, কমলা ঠোঁট
মাতাল করা ঘ্রাণে,
আমি বুঁদ হয়ে যাই, ক্যামনে লুকাই!!
প্রাণ থাকে না প্রাণে।।
তাই তোমার চেয়ে ভালোবাসি তোমারই স্রষ্টারে।

তুমি বললে কথা প্রাণে বাজে
গাইলে পোড়ে মন,
তাই তোমার কথা শুনতে আমার
এতো আয়োজন!
যা কিছু তোমার সবই জেনো প্রিয়া
দান করেছেন তিনি
এই দুনিয়া আকাশ বাতাস
সব দিয়েছেন যিনি।।
তাই হন্যে হয়ে খুঁজে বেড়াই
আমি সে স্রষ্টারে।

০৪.০৫.২০

এই ছেড়া পালে / সাইফ আলি

এই ছেড়া পালে
বাতাস লাগে না
এই ভাঙা হালে
জাগে নাতো ঢেউ
তবু কেউ
যেনো যাচ্ছে নিয়ে
আমার তরী ঠেলে;
বসে আছি
একা ঝেড়ে ফেলে
সব ভার,
সংসার।

সব দায় দেনা মিটিয়ে দিয়ে
সবটাই সুখ দুঃখ নিয়ে
অবসর অবশেষে,
অবসর আমার।

কতো স্বপ্ন ছিলো
আমি বাঁধবো বাসা
বাবুই পাখির মতো নীপূণ ফোঁড়ে
সেই স্বপ্নের খড়
আজ হাওয়াই ওড়ে।

কেউ নেই কিছু নেই
যেতে হবে আমাকেই
তাই যাচ্ছি চলে ।
এখানে কেউ থাকবে না,
কেনো জমি বাঁধো ঘর
তারপর সময় হলে
আমার মতো
সব দায়
পুরোটাই ছেড়ে উঠবে এই নৌকায়…
ভাঙা হাল ছেড়া পাল
তবুও কেউ নিচ্ছে ঠেলে।
বসে তুমি
একা ঝেড়ে ফেলে
সব ভার,
সংসার।।

২৭.০৪.২০

এলো রমজান এলো বৃষ্টি নিয়ে / সাইফ আলি

এলো রমজান এলো বৃষ্টি নিয়ে
রহমের সে ধারায় নেয়েছি,
রহম করো যেনো বলতে পারি-
‘পেয়েছি তোমাকে পেয়েছি।’

তোমার রহম ছাড়া কি চেয়েছি আর
মাগফিরাতও যদি পাই উপহার
ভেজা চোখে সেজদায় লুটিয়ে রবো
ডেকে নিও খুলে দিয়ে নাজাতের দ্বার।।
কেঁদে কেঁদে এটুকুই চেয়েছি…

অন্ধ যারা তারা দেখেনা তোমার
ক্রোধের আগুন প্রভূ কিংবা দয়ার
অমীয় ধারা তাই তাদের সাথে
আমাকেও দূরে ঠেলে দিও না…

অনেকটা পথ শুধু হেঁটেছি একা
যে আশায় আজো তার পাইনি দেখা
মিলেছে অনেক কিছু ভরেনি এ মন
ভরবে না জানি আজ না পেলে তোমার।।
রহম ধারা তাই গেয়েছি
আজ এই গান…

২৫.০৪.২০

আমি তো মাটির কাছাকাছিই ছিলাম / সাইফ আলি

এইসব প্রসাদতুল্য দালান, হাসপাতাল, পাঁচ তারকা হোটেল
কেউ তোমাকে নিলো না!!
মৃত্যু তোমাকে নেবে, কবর তোমাকে নেবে;
সত্যি বলছি এই মাটি তোমাকে নেবেই।
আমাকে নিয়ে ভেবো না,
আমি তো মাটির কাছাকাছিই ছিলাম,
মাটিকে ভালোবেসে কতবার গেয়েছি এ গান-

(‘‘যখন আমার শরীর থেকে নাম
আলাদা করে দেবে মরণ এসে,
তখন আর কেউ শীতল শরীরটাকে
নিতে চাবে না ভালোবেসে।।
তুমিই নিও মাটি, তুমিই নেবে জানি
তোমাতে মিলে যাবে সাধের শরীর
তুমিই ঠিকানা পরিশেষে…

সেদিন ফুরিয়ে গেলে ধার্য’ বাতাস
কিংবা সাগর অবশেষে
কে হবে আপন আর? রহম খোদার তুমি,
তুমিই নিও ভালোবেসে।।

তোমাকে ভুলে যারা দাম্ভিক, পৃথিবীতে
ভোগের জন্য শুধু বেঁচে যায়
তাদেরও ঠিকানা তুমি,
যদিও তারা ভুলে থাকে তোমায়।’’
#গান )

তোমার অর্থ তোমাকে একা ফেলে চলে যাবে
তোমার নাম, যশ ভালো থাকবে তোমাকে ছাড়াই
আর তোমার জন্য অপেক্ষ করবে প্রিয়তমা মাটি
যাকে তুমি এতোকাল নিরেট জড়,খনিজ অথবা ময়লা জেনেই তুষ্ট ছিলে।

তোমার অহংকার তোমাকে নেবে না
তোমার বৈভব কিংবা রুচির দোকান কেউ;
কেউ তোমাকে নেবে না।
সে সকল চোখ যারা জীবিত তোমাকে ভেবে সফল মানুষ
অনুসরণ করেছিলো সারাটা জীবন;
তারা কেউ তোমাকে নেবে না।

আমাকে নিয়ে ভেবো না,
আমি তো মাটির কাছাকাছিই ছিলাম।

৩০.০৩.২০

বহুদিন পর আজ / সাইফ আলি

বহুদিন পর আজ
পেয়ে অবসর
ঘুরে ঘুরে দেখি একি
আমারি যে ঘর!
একাকি কবর যেনো ধু ধু প্রান্তর।।

সারারাত জেগেছি, হয়নি নামাজ
সাজাতে এ ঘরকে কত শত কাজ!
তবু কেনো কবরের মতো নিষ্প্রাণ
আহা! আমারি এ ঘর; আহা! কাঁপে অন্তর।।

চারিদিকে রঙিন কতো কারুকাজ
দেয়ালে দেয়ালে বাজে কতো কি আওয়াজ
তবু যেনো কিছু নেই ফাঁকা ময়দান
আহা! আমারি এ ঘর; আহা! কাঁপে অন্তর।।

২৬.০৩.২০

কেবল ধ্বংশ হয়ে যাওয়াই সত্য নয় / সাইফ আলি

কেবল ধ্বংশ হয়ে যাওয়াই সত্য নয়
কেনো কুরে কুরে খাচ্ছে মৃত্যু ভয়
যদি হাত গুটিয়ে অপেক্ষাতেই থাকি
কেয়ামতের আর কতো দিন বাকি!
তবে ইমানদারের সে নয় পরিচয়।

বিপদ আসে কষ্ট আসে সবারই জীবনে
তাতে ভেঙে পড়া মানেই পরাজয়,
মুমিন তো সে, ভরশা রাখে মনে-
স্রষ্টা আমার অসীম দয়াময়।।

ভাঙছে ভাঙুক গড়তে থাকে গড়ার কারিগর
দু’হাতে সে স্বপ্ন আঁকে, তার গোটা অন্তর
জুড়ে থাকে প্রশান্তি এক; সফল সে নিশ্চয়।

কেবল ধ্বংশ হয়ে যাওয়াই সত্য নয়
কেবল মৃত্যু ডেকে আনাই সত্য নয়
গড়তে এবং লড়তে যারা পারে
প্রভূর সাথে তাদের পরিণয়।।

১৪.০৩.২০

ডানা ভেঙে দাও তবুও উড়বো / সাইফ আলি

ডানা ভেঙে দাও তবুও উড়বো
উড়বো মনের জোরে,
শাহাদাত সেতো কাম্য মোদের
কোরানের পথ ধরে।।

কিভাবে রুখবে এ ঢেউ যখন
আনবে জোয়ার ডেকে,
আল্লাহুআকবার ধ্বনি শুধু
শোনা যাবে দূর থেকে।।
থামানো যাবে না থামবো না দেখো
থামাতে চেষ্টা করে।

জালিমের স্বর যতো উঁচু হোক
হুংকার সেতো নয়
সারাক্ষণ তাকে কুরে কুরে খায়
মানবিক পরাজয়।।
জয়ি তো সে হয় জয়-পরাজয় খোদার জন্য যার
সবার যেখানে শেষ হয়ে যায় সেখানেই শুরু তার।
তাই, থামানো যাবে না থামবো না দেখো
থামাতে চেষ্টা করে।

০৪.০৩.২০

পাপড়ি খুলে কে জাগছে দেখোতো / সাইফ আলি

পাপড়ি খুলে কে জাগছে দেখোতো
তার দু’চোখে কি সূর্য ওঠেনি?
তার দু’কানে কি গায়নি পাখি গান
শুনেছে কি সে এ দ্বীনের আহ্বান??

মেলছে ডানা কে উড়তে দেখোতো
তার দু’চোখে কি বাধ সেধেছে ঘুম
ঘুম ছুটিয়ে দাও তাকে উঠিয়ে দাও
তার কর্ণকুহরে দাও ঢেলে দাও আজান।।
পাপড়ি খুলে কে জাগছে দেখোতো
শুনেছে কি সে এ দ্বীনের আহ্বান??

রাত্রি শেষে কে জাগলো দেখোতো
তার দু’চোখে কি কান্না ছলছল,
সেজদাবনত দেখছো কি তাকে;
দরবারে রবের তার বাড়ছে কতো শান।।
পাপড়ি খুলে কে জাগছে দেখোতো
শুনেছে কি সে এ দ্বীনের আহ্বান??

দরবারে খোদার মন হও অবনত, দরবারে খোদার;
হতাশার মেঘ কাটবে, জীবন হবে উজলা তোমার।

০২.০৩.২০

যদি পথ চলতে ভয় হয় ভয় / সাইফ আলি

যদি পথ চলতে ভয় হয় ভয়
আঁধারে একা জাগে সংশয়
দিও সাহস ফুঁকে হৃদয়ে আমার
নত যেনো হই শুধু স্মরণে তোমার।।

পাখির ডানার মতো ভারসাম্য দিও যাপনে
রঙের পৃথিবী যেনো প্রভাব না ফেলে প্রভূ আমার মনে।।
এই গোলাম তোমার কিছু চায়না তো আর…

তোমাকে নিয়ে লেখা আমার সকল গান
ঝরণার মতো যেনো সাবলিল হয়,
তোমার জিকির প্রভূ কলমে আমার যেনো
অনাবিল হয়।

জীবন নদীর বুকে রহমের ধারা দিও অফুরান
দু’কূল ছুঁয়ে যেনো গেয়ে যেতে পারি প্রভূ তোমারই গান।।
এই গোলাম তোমার কিছু চায়না তো আর…

১৩.০২.২০