বাগানে নতুন একটা ফুল ফুটেছে জানো / সাইফ আলি

বাগানে নতুন একটা ফুল ফুটেছে জানো?
সে ফুলের গন্ধে সবাই নাক ধরেছে, যাচ্ছে না দাঁড়ানো!
গলিতে নতুন একটা লাশ পড়েছে, লাশে
কি দারুণ সুবাস! সবাই ভীড় করেছে লাশের আশেপাশে!!
সেদিকে ছুটছে সবাই যাচ্ছে না থামানো…

করেছে শমন জারি কতক ফাঁড়ি-
সবাই যাবে ফুলে!
অথচ যাচ্ছে সবাই গলির দিকেই
নানান শ্লোগান তুলে!!
শ্লোগানে হাঁকছে গলা মেঘের মতো
নেংটা পোলাপানও!

বাগানে দারুণ সে ফুল প্রেম পেলো না
কেমন এ পাগলামি,
ভাবতে ভাবতে হঠাৎ গলির মুখে
শ্লোগান দিলাম আমি!
অবিশ্বাসের দোলায় ভীষণ দুলছে আমার কানও…

২৬/০১/২৩

তুমি এতো সুন্দর / আবু হেনা মোস্তফা কামাল

তুমি এতো সুন্দর
তুমি কি সত্য হতে পারো
না হয় একটু খুঁত থাকতো রূপে
তাহলে আমার হতে আরো।।

বিদিশার কালো নিশা ও কালো কেশে
হাজার বছর পরে যদি না মেশে
মনে হয় কোনো ক্ষতি হতো না কারো।।

তুমি এতো সুন্দর কিছুতেই বিশ্বাস হয় না
কোনো কবি দিতে পারে উপমার সাতনরী গয়না।

উজ্জয়িনীর নীল ও দুটি চোখে
মেঘের চূড়ায় ভেসে এনে দিলো কে
মনে হয় আমি নই শত্রু তারো।।

এই আজাদী নিয়ে এলো চাঁদ সিতারা / ফররুখ আহমদ

এই আজাদী নিয়ে এলো চাঁদ সিতারা;
এল শিকল ভাঙ্গা দিন বাঁধনহারা।।

এল জোয়ার এল প্রাণ প্রবাহে আজি,
সেই চলার তালে ওঠে দু’কূল বাজি;
শুধু সমুখ পানে চলে বন্যাধারা।।

আজ এসেছি সবে আর নহি তো একা,
আজ সবার সাথে পড়ি ললাট লেখা;

এই জামাতে আজি ভোল্ দুখের কথা
আজ ভুলে যা তোরা ব্যথা বিহ্বলতা;
গাহি মিলিত সুরে এই কওমী নারা।।

সুর: আবদুল আহাদ
স্বরলিপি: লায়লা আর্জুমান্দ বানু

একদিন তুমি আমি সত্যিই / সাইফ আলি

একদিন তুমি আমি সত্যিই
স্বপ্নের পৃথিবীতে রবো না
বঞ্চিত মানুষের সামনে
আমাদের কথাগুলো কবো না।।
সেদিন কি নিভে যাবে সূর্য? (না না না…)
আমরাও আশাহত হবো না।

ভাতঘুমে কেউ রবে ঘুমিয়ে
কেউ রবে অভুক্ত সারাদিন
হয়তো এ বিভেদের বেড়াজাল
কোনোদিন দূর হবে না।।
তখনও কি কিছু পাখি থাকবে?
শপথ নেবে- চুপ রবো না…
(থাকবে থাকবে থাকবে)
তাই আমরাও আশাহত হবো না।

পাঁচতারা হোটেলের লবিতে
যাতায়াত হবে কারো নিত্য
কারো কারো পরিচয় সেদিনও
রয়ে যাবে পুরাতন ভৃত্য।।
তখনও কি কিছু পাখি থাকবে?
শপথ নেবে- নিচু হবো না…
(থাকবে থাকবে থাকবে)
তাই আমরাও আশাহত হবো না।

২০/০১/২৩

শোন বোলবো তোমায় আমি একটি কথা / আবু হেনা মোস্তফা কামাল

শোন বোলবো তোমায় আমি একটি কথা
যদি শুনবে মেয়ে
তার অন্তরে ফাল্গুনী মর্মরতা
তুমি শুনবে মেয়ে।।

যেয়ো না, যেয়ো না তুমি বনের পথে
ঐ নূপুর পায়ে
তার ছন্দে মাতাল নেশা উঠবে জেগে
ঐ নদীর গায়ে
আমি সইতে পারি না তার সে মত্ততা।।

যেয়ো না, যেয়ো না তুমি বনের পথে
ওগো স্বপ্নপরী
তার কাঁকনের গুঞ্জনে উঠবে জেগে
ভীরু বন ময়ূরী।

তুলো না তুলো না তুমি ঢেউয়ের নেশা
ঐ অংগ ঘিরে
তার চপল সোহাগ লেগে আবীর ঝরে
ঐ নদীর তীরে
আমি সইতে পারি না তার সে মধুরতা।।

লক্ষ পাথরে গড়া এ পাহাড় / ফররুখ আহমদ

লক্ষ পাথরে গড়া এ পাহাড়
ভেঙে হ’ল একাকার
চলো এক সাথে তুলে নেই হাতে
পাহাড় গড়ার ভার।।

ঘুম ছেড়ে তুমি ছুটে এসো কারিগর
চলো এক সাথে গড়ি মানুষের ঘর
এক সাথে আজ খুলে যাই দ্বার
সুপ্ত পূর্বাশার।।

অযুত প্রাণের মুক্তি স্বপ্ন নিয়ে
গড়ি কোহেতুর লক্ষ পাথর দিয়ে
জীবনের গানে ভরে তুলি মন
এ মরু শূণ্যতার।।

সুর: আবদুল আহাদ
স্বরলিপি: লায়লা আর্জুমান্দ বানু

যে ছিলো বুকের মাঝে / সাইফ আলি

যে ছিলো বুকের মাঝে
সে চেয়েছে ঘর
আমি কেমন কোরে করবো তারে পর
তুই বলনা বন্ধুবর,
একটুখানি বোঝাস তারে চলনা বন্ধুবর।

তার দুচোখের কাজল হতে
পুড়ে হলাম কালো,
আর কে আছে আমার চেয়ে
বাসবে তারে ভালো??
কেমন কোরে পাঠ্য করি আমার এ অন্তর?

পাখির বাসা আবর্জনা
উড়ে গেলেই পাখি,
ভালোবেসে যতই তারে
যত্ন করে রাখি।।
কেমন কোরে বোঝাই তারে বলনা বন্ধুবর।

২০/০১/২৩

ডাগর নয়নে কী মায়া জড়ানো / আবু হেনা মোস্তফা কামাল

ডাগর নয়নে কী মায়া জড়ানো
সে কথা সাগর জানে,
জীবনে আমার পূর্ণিমা হয়ে
সে শুধু জোয়ার আনে।।

কবরীতে যার মেঘের মাধুরী দোলে
আঁখির আভাসে আবেশে হৃদয় ভোলে
ভালো লাগে তারে আর কিছু নয়
দূরে থাকি অভিমানে।।

যত সে গরবী কাছে আসে তার
মহুয়া মাতাল হাসিতে
হৃদয় যে শুধু হার মানে আর
মন চায় ভালোবাসিতে।

কিছুই না বলে যে কথা যায় সে বলে
সেই ভাষা মোর মদির কণ্ঠে তোলে
গানের বেদনা, চাঁদ হয়ে সেতো
আমায় যে কাছে টানে।।

সুর: আনোয়ার উদ্দিন খান

ঝড়ের ইশারা ওরা জানে / ফররুখ আহমদ

ঝড়ের ইশারা ওরা জানে।
নীড় ছেড়ে উঠে আসে
প্রদীপ্ত উল্লাসে
মরণের ডর নাহি মানে।।

ভীরু যারা আঁধারে লুকায়
ওরা শুধু সংঘাত চায়
বজ্র বিদ্যুতের মুখে
ফেরে নির্ভীক বুকে
নির্ভয়ে ওরা পাখা হানে।।

ভেঙে পড়ে আকাশ খিলান
তবু তোলে যৌবন গান
ধরি মৃত্যুর টুটি
প্রাণধারা আনে লুটি
জীবনের নব অভিযানে।।

সুর: আবদুল আহাদ
স্বরলিপি: লায়লা আর্জুমান্দ বানু

আমার শাদা ক্যানভাসে কে রঙ চড়ালো / সাইফ আলি

আমার শাদা ক্যানভাসে কে রঙ চড়ালো
চারপাশে কে জ্বালিয়ে দিলো রঙিন আলো;
আমাকে শূন্য ভেবে পূর্ণ করার খায়েশ কি তার?
জানেনা অন্তমিলের অভাব কেনো এই কবিতার।

সে শুধুই শব্দ ঘাটে মাত্রা গোণে হৃদয় বোঝে না
কবিতার অলংকারে রূপ খোঁজে সে জীবন খোঁজে না;
ও তার রঙিন আলোর মিছিল দেখে হাসে অন্ধকার!
আমাকে শূন্য ভেবে পূর্ণ করার খায়েশ ছিলো তার…

যদি সে বাসতো ভালো আসতো কাছে শর্ত না দিয়ে
আমি তার চলার পথে হৃদয় আমার দিতাম বিছিয়ে;
ও তার শূন্য হাতেই দিতাম তুলে সবটুকু আমার।
আমাকে শূন্য ভেবে পূর্ণ করার খায়েশ ছিলো তার…

১৯/০১/২৩