মহুয়া সুন্দরী / ফজলুল হক তুহিন

সেদিন বিকেলে দেবদারু গাছের ছায়ায়
তুমি আর আমি হেঁটে গেছি বহুদূর;
মনে কি আছে তোমার সেই বাতাসের সুর?
সবুজ ছায়ার মায়া ছেড়ে ঘাসের সবুজে
দুজন বসেছি মুখোমুখি;
আকাশের আলোয় তোমার মুখখানি
দেখেছি অনেক সুখি।
হাতে হাত রেখে দুচোখের মায়াবী খাঁচায়
আমার স্বপ্নের সব পাখিরা স্বেচ্ছায় বন্দিত্ব নিলো,
সপ্রতিভ তোমার হাসিতে ওরা খাঁচাছেড়ে আগামীর
দিগন্তে উড়াল দিলো।
চারপাশে সবুজ ঘাসেরা আমাদের ঘিরে
আশীর্বাদ করেছে, তা তুমি বুঝতে পারনি,
অনুভব করতে পারনি-ে তুমি
একালের মহুয়া সুন্দরী।
প্রকৃতির মধ্যে ডুবে থাকা গুপ্ত ঘাতক কীটেরা
যেভাবে সুন্দর খেয়ে ফেলে, তেমনি তোমাকে
গ্রাস করতে আসবে কালের করাত;
কেমন করে যে সবুজের হাসি হাসবে তোমার বরাত,
আমি জানি না তা,
শুধু জানি মহুয়া সুন্দরী,
ঝড়ঝঞ্ঝাময় জীবনের রাজপথ
গর্বিত হবেই যখন গড়বে আমাদের প্রেমের বিজয়ী রথ।
দক্ষিণে দরিয়া সাক্ষী উত্তরে ঐ হিমালয়
জীবন জগৎ হবে প্রেমময়; আর কোনো মৃত্যু নয়।

Advertisements

প্রচ্ছদ: আল মাহমুদের রাজনৈতিক কবিতা / সাইফ আলি

28034077_928415623994525_1932119334_o

কবি ও নারী / ফজলুল হক তুহিন

কবিছাড়া তুমি পূর্ণ নও, নারী
কবিও অপূর্ণ তুমিছাড়া।
মৃত্তিকা পূর্ণতা পায় না গাছের শেকড়ছাড়া
আকাশ অপূর্ণ মেঘ, নক্ষত্র, চাঁদের আলোছাড়া
নদীর জীবন ব্যর্থ ছলাৎ ছলাৎ ঢেউছাড়া
কবির জগৎ ধু ধু মরুভূমি তুমিহারা।
অরণ্য অপূর্ণ থেকে যায় প্রাণিহীন
আলোছাড়া সূর্য আধাঁরে বিলীন
পাখিছাড়া গাছপালা শূন্যতার সারি
কবিছাড়া তুমি অর্ধনারী।
নারী, এসো, পরস্পর হই পূর্ণ
তাবৎ অহং করে ফেলি চূর্ণ।

নদী ও নারী / ফজলুল হক তুহিন

আমার সামনে দিয়ে বয়ে বয়ে যাচ্ছে কীর্তিনাশা;
যেমন অনন্তকাল ধরে মানুষের রক্তে স্বপ্ন-আশা,
তুমি কাশবনে আছ দাঁড়িয়ে, আমার পাশাপাশি;
একদিকে নদী আর অন্য পাশে তুমি,
মধ্যবর্তী আগন্তুক আমি শুনি দুজনের ভাষা।
নদী আর নারী চিরকাল সভ্যতার সৃজনে চেতনে;
আমরা মুগ্ধতা নিয়ে বের হই পৃথিবী ভ্রমণে,
রোমাঞ্চিত, আনন্দিত, তৃপ্ত হয়ে ফিরি ঘরে,
স্বাভাবিক জীবনযাপনে আবারো অভ্যস্ত হয়ে যাই;
তবু রেশ থেকে যায়- ঢেউ ওঠে স্বপ্নে, রক্তে, মনে।
কীর্তিনাশা, তোমার গন্তব্য জানি বঙ্গোপসাগরে;
নারী, তুমি যাবে কোথা, কার সাথে?
তোমাকে ডাকছি আমি মজ্নুর মতো,
তোমার মঞ্জিল হোক কেবল আমার ঘরে।

সবুজের সম্মোহন থেকে / ফজলুল হক তুহিন

‘আহা কি আনন্দ আকাশে বাতাসে’-
আমি আর তুমি হেঁটে হেঁটে যাচ্ছি ঘাসে ঘাসে,
পায়ে পায়ে উড়ে উড়ে ঘুরে ঘুরে
আনন্দে ভাসছে ঘাসফড়িং, আমার মন;
বৃষ্টিভেজা মাটির সুবাস চেতনায় সারাক্ষণ!
আমাদের সামনে-পেছনে-পূর্বে ও পশ্চিমে সবুজ প্রান্তর,
তোমার চুলের আকর্ষণে মেঘপুঞ্জ নেমে এসেছে ঐ দেখ,
কখন যে ভিজিয়ে দেয় সে, ভয়ে উদ্বিগ্ন অন্তর!
তোমার শাড়িতে লুটোপুটি দিয়ে যাচ্ছে জলদ হাওয়ারা
আমি চেয়ে আছি আর বাতাসকে হিংসে করছি।
চারিদিকে এতো গাঢ় সবুজের সমারোহ
নিজেকে হারিয়ে ডুবে যাচ্ছি অহরহ;
সবুজের সম্মোহন থেকে আমাকে বাঁচালে তুমি,
হাতছানি দিয়ে মনদৃষ্টি কেড়ে নিলে তোমার সবুজে।
দু’চোখের সমুদ্রে তলিয়ে যাচ্ছি হাতে হাত রেখে,
আর ফরহাদ হয়ে স্বপ্ন দিয়ে ভবিষ্যত যাচ্ছি এঁকে।

জীবনের মানে / ফজলুল হক তুহিন

আমি পদ্মা আর তুমি স্বচ্ছ যমুনার ধারা
দুটি স্রোত মিলিত হয়েছে প্রেমের বিন্দুতে,
বর্ষায় ছাপিয়ে ওঠা দুই কূল আত্মহারা
চলো ছুটে চলি পূর্ণতার বঙ্গোপসাগরে।
মাঝপথে পার্থিব পলির চর কেনো তোলো?
কেনো বাঁধতে চাইছো ঘর, ফসলের চাষ;
গড়ে তুলতে কী আগামীর প্রজন্ম আবাস?
নারী, তুমি বুঝি জীবনের পূর্ণতা চাও না?
কী হবে এখন আর ঘর বেঁধে প্রিয়তমা,
দু’জন যখন নিশিদিন চলেছি স্রোতের টানে;
বুঝেছি প্রেমের সুখজ্বালা, জীবনের মানে-
চলো তাই মিশে যাই দু’জন মহাসাগরে।

বনসাই / ফজলুল হক তুহিন

তুমি যে সবুজ বনসাই আমাকে দিয়েছো,
সেটা বনসাই হয়ে থাক, তা আমি চাই না।
আমার বাগানে আমি সেটা লাগাব, ঢালব পানি
রোজ যত্ন নেবো, ছোঁবো; কিছুতেই রাহাজানি
হতে দেবো না; হোক না সৌন্দর্যের জানাজানি
পরওয়া করি না কারো, ঝড়ের ভয় পাই না।
সময়ের সঙ্গে বড় হবে বটের গাছটি
সুখস্বপ্নসাধের পাখিরা নেচে যাবে ডালে ডালে,
জীবন্ত স্মৃতির আলো খেলে যাবে পাতায় পাতায়
ষড়ঋতু দেখা দেবে কবিতার সৃষ্টিসুখকালে।
শেকড় বিস্তৃত হবে জীবনের মৃত্তিকা জড়িয়ে
প্রাণের আবেগে সবুজতা যাবে আকাশে ছড়িয়ে।
যতদিন বেঁচে আছি এই বৃক্ষ আমার প্রেরণা-
সৃজনের উৎসধারা চোখের সামনে বড় হোক;
যতই সবুজ হবে, পল্লবিত, কুসুমিত হবে
জীবন ততোই হবে প্রাণময় আর কাব্যময়।
একদম ভুলে যাবো বেদনার আরণ্যক
আমায় ছুঁবে না পৃথিবীর কোন দুঃখ-শোক।