সত্ত্বার সংগীত / মুসা আল হাফিজ

একটি মোহন হাসি জেগে আছে
উত্তরে, দক্ষিণে, পূর্বে, পশ্চিমে উপরে, নিচে
ডানে, বামে, আগুন-পানি, আলো- অন্ধকারের পাহারায়
সমস্ত স্রোতধারায়

কী নাম এ হাসির বলবে কবি?
আমি জানি তার নাম সব ভালো নাম

এ নামের মায়া থেকে তৃণের সংসারে এলো নন্দনের ঘ্রাণ
পৃথিবীতে নেমে এলো দুধের ফেনার মতো প্রত্যুষের প্রাণ

আত্মীয় বাতাস এসে দু’ মেরু সজাগ করে
ছড়ালো সে হাসির সুরে সবার সুরধারা!

অফুরান স্নেহের সুর চরাচরে ডেকে ফিরে – কোথায় তাতিরা!

প্রেমের সুতোয় করো হৃদয় বয়ন
নির্ভার মুক্তি তবে খুলবে নয়ন

আমি সেই হাসি দিয়ে সাজালাম আমাকে

তার সৌন্দর্যের বাঁকাদৃষ্টির নাম শিল্প
তার চাহনির ঝলকের নাম আলো
চোখের পলকের নাম ছন্দ এবং
এই মাত্র তার ডানা মেলার কোমল  মূদ্রাগুলো
আকাশের জানালা খুলে ছুটে গেলো!!

শুনো, তারা আত্মার প্রথম প্রদেশে প্রবেশ করেছে মাত্র!

শুরু হলো আমাদের সুরেলা জাগরণ
সকলেই ছুটে চললো অলৌকিক এয়ারপোর্টে
পথ জুড়ে পুষ্পের গান মাতোয়ারা নির্যাস
হরিৎ ফোয়ারাগুলো সুন্দরের ঘাসে-ঘামে মন মেখে দেয়
অনন্তের মোতিমালা সবুজের মস্তকে পাগড়ি হয়ে ঝলসায়

কোন এক মমতা-আওয়াজ যাত্রীদের ডাক দিলো আসমানী জলসায়!

আমি কোথায় যাবো?
নিশ্চয় তার একান্ত হাতে- ‘সিঁড়ি নিয়ে চলো’

যারা তার সান্নিধ্যে গিয়ে গলে যেতে চাও, নি:শেষে গলো

আমি তো কিষানের ছেলে
নিজেকে রোপণ করি আকাশে-বাতাসে
মহাকাশে ‘আমিবৃক্ষে’ দুলে তার ডাল
দেখে মহাকাল

কালো-ধলো, শক-হুন সকলের নাম
জন্ম-মৃত্যু, সুখ-দু:খ আর পরিণাম
আমার পাতায় পাতায় বাজে দিবা-যাম