সময়ের ছড়া-০৮ / সাইফ আলি

মগজ কলে দম দিতে তার
গাঞ্জা লাগে আটি আটি,
মহাজ্ঞানের ভান্ডারী সে
মানবতার সেবক খাটি!

Advertisements

সময়ের ছড়া-০৭ / সাইফ আলি

ছুডো ছুডো পোলাপাইন
রাজনীতিতে নাম লেখায়,
কথায় কথায় কেমুন লাগে
হল ছাড়নের ভয় দেখায়।

ডর লাগে!!
হল কি তুমার বাবার জাগা?
কাপছি ভীষণ; জ্বর লাগে!!!

ইচড়েপাকা দ্যাখলে তোগো
ক্যামন যেনো দরদ হয়,
এমনে করে পরজীবি কি
সত্যিকারে মরদ হয়?

সময়ের ছড়া-০৬ / সাইফ আলি

ছাত্র তুমি ছাত্র আছো?
বিবেক বেচে ওদের কথায়
সকাল বিকাল ক্যামনে নাচো?

সময়ের ছড়া-০৫ / সাইফ আলি

ভার্সিটিতে পইড়া হেতে
বিরাট কামের কাম করে,
চা দোকানের চান্দা তুলে
‘ভাই’ হিসেবে নাম করে।

মার্কেটিং / সাইফ আলি

সফলতা মার্কেটিঙে
রুমে কিংবা পার্ক-ডেটিঙে
আজকে যারা বাজাচ্ছে গাল
পন্য তাদের টপ-রেটিঙে।

মার্কেটিঙের সফলতায়
ব্যবসা লালে লাল কারোটা,
কারো আবার বিফলতায়
দিনেও দেখে রাত বারোটা।

তাই বলি ভাই প্রয়োজনে
ন্যাংটা হয়েও দৃষ্টি কাড়ুন,
লুঙ্গি বেধে লাঠির আগায়
মার্কোটিঙের ঝান্ডা নাড়ুন।

বুদ্ধিজীবী / সাইফ আলি

বললে তুমি সহজ ভাষায় ছাড়বে সবই বুঝিয়ে
মন কিছুটা আশ পেলো
সস্তির নিঃশ্বাস পেলো
মনঃযোগী ছাত্র হলাম ঘাড়-মাথা-মুখ গুঁজিয়ে।

কিন্তু তোমার ব্যাখ্যা শেষে- জাগলো মনে খটকা,
পাড়লো মোরগ আন্ডা!
সূর্যটা খুব ঠান্ডা!
বাপ মরেছে সেই খুশিতে পোলায় ফোটায় পটকা!

বললে তুমি, ঠিক আছে;
ভীষণ স্বাভাবিক আছে
আমজনতার মনটা!
আচ্ছা তুমি কোনটা?
সত্যিকারের পাগল নাকি ভান ধরেছো বলবে?
বুদ্ধিজীবী শব্দটা কি গালির মতোই চলবে?

সময়ের ছড়া-০৪ / সাইফ আলি

কাব্য করার টাইম কোথায়
কাব্য করার চর্চা
দিনে রাতে বাড়ছে কেবল
বাজার সদায় খরচা।

বেতন ভাতা মিলছে যাদের
এক্সট্রা কামায় উপরি,
ডাটের আলাপ তাদের সাজে
শুন্য তাদের খুপড়ি

ভরছে নানান উপহারের(!)
নিত্য নতুন পন্যে,
কিন্তু যারা গতর খাটায়
পেট চালানোর জন্যে?

প্রসাশনের ক্ষ্যামতা এখন
বর্ণনাতে আসন দায়,
আমজনতা এখন কেবল
হাতখরচের বাড়তি আয়?

তা নয় ভায়া পরের টাকায়
পোদ্দারি আজ মূল ইনকাম,
সরকারে দেয় হাত খরচের
অল্প কিছু! ডান আর বাম

চিনছি না আজ সবাই শালা
দেদারছে বাঁশ বিলোচ্ছে,
কাব্য করার ভূত যেনো তাও
সকাল বিকাল কিলোচ্ছে!