বৃষ্টি / সায়ীদ আবুবকর

বন, নদী, গ্রাম, মাঠ ভিজছে বৃষ্টিতে,
ভিজছে মাঠের গরু, শালিকের ঘর;
রোমাঞ্চিত কায়া আজ সুখসুখ শীতে,
দুধজলে ভিজে যায় বাউলঅন্তর।

বাউলঅন্তর যায় ভিজে পুরোপুরি
যেভাবে কাকেরা ভেজে দলবেঁধে ছাদে;
কোন্ কালে কে অন্তর করেছিল চুরি,
সেই শোকে গৃহকোণে কেউ যেন কাঁদে!

গৃহকোণে চোখে কারো বয়ে যায় নদী,
আকাশ যে কার শোকে কেঁদে জার জার!
যত দূর চোখ যায়, অথই জলধি
যত দূর মন যায়, প্রণয়পাথার।

বৃষ্টি! বৃষ্টি! বৃষ্টি! আহা, ঝরে ঝরঝর-
ভিজে গেছে দুধজলে বাউলঅন্তর।

২৮.৭.২০১৩ মিলনমোড়, সিরাজগঞ্জ

Advertisements

বেহুলাবধূ / সায়ীদ আবুবকর

এখানে যখন সন্ধ্যা ঘনায়
তোমার ওখানে দিনের শুরু;
রাত্রি এগোয় সাপের ফণায়,
কাঁপে আতঙ্কে হৃদয়, ভুরু!

ওখানে যখন রাত নেমে আসে,
দোয়েলেরা দেয় এখানে শিস;
তরাসে তোমার গা ঘেমে আসে,
যেনবা বাতাসে সাপের বিষ

লোরেনা আমার বেহুলাবধূ,
আর নয় দুই কিনারে বাস;
এক ফুলে হবে আমাদের মধু,
এক মাঠে হবে প্রেমের চাষ

চার চোখে যেন দেখি এক ভোর
দু-হৃদয়ে এক রাত্রি ছুঁয়ে;
ভালবেসে হবো কালের কবর
পাশাপাশি এক জমিনে শুয়ে

২.১০.২০১২ মিলনমোড়. সিরাজগঞ্জ

তাকে দেখলে চিনি / সায়ীদ আবুবকর

তাকে দেখলে চিনি, মনে নেই বাড়িঘর।
মুখ মনে আছে, চোখ মনে আছে, ভুলে গেছি শুধু তার
গোলাপি অন্তর।

২৮.৪.২০১২ ইংরেজি বিভাগ, সিরাজগঞ্জ কলেজ

হীরকের খনি / সায়ীদ আবুবকর

হাতে লেগে আছে স্তনের ঊষ্ণতা,
ভিজে গেছে সুখে প্রেমার্ত এ হাত;
কানে লেগে আছে কোকিলের কথা,
বুকের গভীরে ছড়ায় মৌতাত।

ঠোঁটে লেগে আছে চাঁদের চুম্বন,
বুকে গিয়ে পড়ে সুখের ফোয়ারা;
মনে লেগে আছে জুলেখার মন,
সারা অঙ্গ তাই সুখে দিশেহারা।

চোখে লেগে আছে সমুদ্রের ঢেউ,
চোখজুড়ে তাই চাঁদের চাহনি;
এরকম করে বলেনি তো কেউ
‘তুমিই আমার হীরকের খনি!’

৮.৩.২০১৪ কাজলা, রাজশাহী

হৃদয়ের সুখে / সায়ীদ আবুবকর

শরীর ঈর্ষায় মরে হৃদয়ের সুখে,-
হৃদয় যাপন করে যেন বা পরীর
ফুলেল জীবন; তাই চোখে-ঠোঁটে-মুখে
দোজখের দীর্ঘশ্বাস ছড়ায় শরীর।

দু-হৃদয় এক হয়ে যেন প্রজাপতি
অসীম আনন্দে ওড়ে রঙিন ডানায়;
প্রণয় তাদের দেছে আলোকের গতি,
বিশ্বাসে জীবন ভরে কানায় কানায়।

কোথায় মেক্সিকো আর কোথায় এ বঙ্গ,
দোঁহার হৃদয় তবু আটটি প্রহর
একসাথে একখানে করে প্রেমরঙ্গ;
জলে-স্থলে-শূন্যে তারা বেঁধেছে যে ঘর।

হৃদয়ের সুখ দেখে অঙ্গে পাকে জট,
দু-শরীর দুই দেশে করে ছটফট।

২১.৪.২০১৩ মিলনমোড়, সিরাজগঞ্জ

মেয়েটা / সায়ীদ আবুবকর

মেয়েটা মাছের মতো হাঁটে
পথেঘাটে।
যখন সে পথের মাথায় এসে থামে,
মনে হয় তাকে পুরে রাখি হৃদয়ের একুইরিয়ামে।

মেয়েটা পাখির মতো কথা কয়
সমস্ত সময়।
তার কথা শুনতে শুনতে হতভম্ব হয়ে যায় কান;
মনে হয় কত পানসে, কত অর্থহীন পৃথিবীর আর সব গান।

মেয়েটা ফুলের মতো হাসে।
তার পাশে
আর কোনো হাসি
মনে হয় কত জং ধরা, কত আলুথালু, কত বিশ্রী, কত বাসি।

৫.১১.২০১৩ মিলনমোড়, সিরাজগঞ্জ

ছায়ার মানুষ / সায়ীদ আবুবকর

সে হাঁটছে জ্যোৎস্নার ভেতর, কিন্তু তার ছায়া নেই;
এদিক সেদিক তাকাতে তাকাতে হাঁটছে সে এক মনে-
শুধু তার ছায়া নেই।

কে এই লোকটা? আমি ভাবি। চোখের চশমা খুলে
সে তাকালো এক নজর আমার চাহনির দিকে।
তারপর আগের মতোই হাঁটতে হাঁটতে মিলে গেল
নিশীথের ছায়ার ভেতর।

কে এই লোকটা? আবারও অবাক হয়ে আমি ভাবি।
সে কি কোনো গোরস্থান থেকে উঠে এসেছিল আজ রাতে,
নাকি তার বসবাস সবসময় আমারই সাথে সাথে?

৮.৮.২০১৩ নাটোর