আমার এক জানালায় আকাশ ছিলো / সাইফ আলি

আমার এক জানালায় আকাশ ছিলো
আর জানালায় বন
মন রে ও মন
তুই পাখির কথা শোন।।

যেই জানালায় আকাশ ছিলো
সেই জানালায় মেঘ
মেঘের ঘরে বৃষ্টি ছিলো;
তার মনে উদ্বেগ-
‘আমি উড়বো কতক্ষণ।।’

আর জানালায় বনের খাতা
ভরে ছিলো সবুজ পাতা
শাখায় শাখায় ফুল জানালো
আমায় নিমন্ত্রণ।
আমি পাখির মতো উড়বো সেথায়
ইচ্ছে যতক্ষণ…

আমি দুয়ার খুলে বনের পথে
যেই বাড়ালাম পা,
বৃষ্টি ছুয়ে দিলো সবার
প্রথম আমার গা।।
বৃষ্টি ভেজা মন তুই পাখির কথা শোন
আকাশ পেয়ে যাসনা ভুলে বনের নিমন্ত্রণ।
১২.০১.২১

এ বাগান থেকে আর কতো ফুল ঝরে গেলে / সাইফ আলি

এ বাগান থেকে আর কতো ফুল ঝরে গেলে
আমাদের ভাঙবে গো ঘুম
কেবলই স্বপ্ন দেখি, বিরহ কাব্য লেখি
হতাশার পিঠে দিই চুম।।

আমাদের বুকে নেই ওমরের চেতনা
খালিদের মতো নেই তলোয়ার,
কিভাবে ভাঙবো তবে জালিমের কালো হাত
কিভাবে মুক্তি পাবো বলো আর।।
এ আশা কি আকাশ কুশুম…?

যন্ত্রণা এর থেকে কম কিসে জানি না
বলতে পারি না প্রভু তোমার আদেশ ছাড়া
আর কারো কোনো কথা মানি না।

হেদায়াত দাও প্রভু আরো দাও আরো দাও
দৃষ্টির তীক্ষ্ণতা বাড়িয়ে,
কুয়াশার এ আধার ভেদ করে করে যেনো
যেতে পারি সব বাধা মাড়িয়ে।।
ভেঙে দাও এই কালো ঘুম…
১১.০১.২১

এই নত মুখে বসে থাকা ভোর / সাইফ আলি

এই নত মুখে বসে থাকা ভোর
দিতে পারে না পারে না উত্তর
কবে ফুটবে আলো
কাটবে এ আধারের ঘোর।।

ভ্রান্তির এ আধার ঘুচবে কবে
অশান্ত এ হৃদয় শান্ত হবে,
কবে জ্বলবে আলো বুকে তরুণ অরুণ
আমাদের মাথার উপর।।

খোদার কালাম নিয়ে বসে আছো কে
শত ফুল ফুটবে তোমার ডাকে
তুমি আওয়াজ তোলো এই দুয়ার খোলো;
তুমি বাসা বাধো বুকের ভিতর।

শান্তির এ পথেই আসবে বিজয়
নমনীয় শিরদাঁড়া আমাদের নয়
তুমি বলবে কথা সদা উঁচু করে শির
প্রশ্নের দেবে উত্তর।।
১১.০১.২১

চেনা এক বৃক্ষের ডালে / সাইফ আলি

চেনা এক বৃক্ষের ডালে
সেদিন পড়ন্ত বিকালে
পাখি তুই বসে ছিলি একা
এখানেই শেষ হতো লেখা
যদি শিস না দিতিস…

এ গল্পের শুরু থাকতো না
কেউ অবেলায় পিছু ডাকতো না
হারানোর ব্যথা বুঝতো না মন
যদি প্রেম না দিতিস।।

পাখনার ঝেড়ে ফেলে ঘুম
তুই এনে দিলি রাত নিজঝুম
কবে এই রাত হলো দীর্ঘ এমন!?
যদি নাম না নিতিস।।
পাখি শিস না দিতিস…
০৩.০১.২১

ভালোবেসে কেউ বনে যেতে চায় / সাইফ আলি

ভালোবেসে কেউ বনে যেতে চায়
কেউ ভালোবেসে শহর বানায়
আমিই কেবল ভালোবেসে বেসে
জড়ো করি সব পাখির ডানায়।।

তুমি কি দেখনা ভালোবাসাহীন
কিভাবে যাচ্ছে আমাদের দিন;
শুধু ছুটে চলে অর্থের পিছে
পরষ্পরের বাড়ছে যে ঋণ।।
ঋণখেলাপির তকমা লাগিয়ে
চলতে কি আর আমাকে মানায়
তাই যতো সব ভালোবেসে বেসে
জড়ে করি এই পাখির ডানায়…

ইট কাঠ বালি আর এক ফালি
শহরের ছাদে ঝুলে থাকা চাঁদ
ভালোবেসে কেউ তোমাকে ছাড়াই
প্রেমের কাব্য করছে আবাদ।।
অথচ আমার প্রেমের কবিতা
তোমার জন্য আটকিয়ে যায়
পাখিদের এই শহরে বন্ধু
তোমাকে ছাড়া কি আমাকে মানায়?
৩১.১২.২০

ছায়া ধরে বেঁচে আছি / সাইফ আলি

ছায়া ধরে বেঁচে আছি
একদিন ছেড়ে যাবে সেও;
ভয় পাবো কিসে বলো
প্রেম যদি থাকে মরণেও?

কেবল দুনিয়া যার
তার শত রোগে শোকে ভয়,
শাহাদাৎ পেয়ালায়
ঠোঁট রেখে খুঁজি পরিচয়।
০৮.১২.২০

পৃথিবীটা নেড়েচেড়ে / সাইফ আলি

পৃথিবীটা নেড়েচেড়ে রেখে দেবো ফের
কিসে এতো ভালোবাসা মায়া আমাদের?
দু’দিনের মুসাফির, ঘর বাঁধি; পাথরের ঘর
হাতে হাতে গড়ে তুলি কি দারুণ পাপের শহর
তারপর একদিন ছেড়ে গেলে ছায়া আমাদের
পৃথিবীটা নেড়েচেড়ে ঠিকঠাক রেখে দেবো ফের।

আমাদের সন্তান, সম্পদ, ভালোবাসা সব
ভাগাভাগি হয়ে যায়; কে চালায় কসায়ের ছুরি?
আমলের খাতা খুঁজি, হায় হায় চুরি গেছে চুরি!
এখন তো খালি হাতে কেউ নেই কিছু নেই, রব…
জানতাম পৃথিবীটা নেড়েচেড়ে রেখে দেবো তবু
কেনো যে মেতেছি ভুলে, ক্ষমা করো ক্ষমা করো প্রভু।
০৩.১২.২০

নরম ঘাসে ফেললে পা / সাইফ আলি

নরম ঘাসে ফেললে পা
কখনো মন ভাঙে না;
মন ভাঙে মনকে ভাঙলে নিজেই,
তুলিতে যে মন রাঙে না।।

মন কিযে চাই কোন ঠিকানায়
কড়া নাড়ে সে বারে বার
খোঁজ নিও তার
সত্যের সন্ধান দিও উপহার।।
মন তো বিচার মানে না।

মনকে সাজাও
মনকে বাজাও
মনকে দেখাও সীমানা
বিবেকে বাধো তার পা।

মন মানে না, মন জানে না
পথ ভুলে যায় বারে বার
ভালোবেসে তার
সত্যের সন্ধান দিও উপহার।।
কটু কথা মন টানে না।
০২.১২.২০

ভ্রান্তিতে পথ গেলে বেঁকে / সাইফ আলি

থেকে থেকে
ভ্রান্তিতে পথ গেলে বেঁকে
থেমে যাই, খুঁজি তোমায়
নিজেই আবার নিজ থেকে;
তোমার রহম নাজিল হয় তখনই।।

জানি বিশ্বাসী মন
হতাশায় ভেঙে পড়ে না
ব্যথা পায়, আশাহত হয়
তবুও সে পথ থেকে সরে না
তার থেকে আর কে আছে ধনী?
তোমাকে পায় সে ডাকে যখনই।।

মাঝে মাঝে মেঘ ঢেকে দেয়
মনের আকাশ ঝড়ো বাতাসে
এলোমেলো হয়ে যায় সব
তোমাকে ডেকে সান্ত্বনা পাই ওগো রব।

এই অবারিত মাঠ
ফুলে ও ফসলে ভরে যায়
সেজদায় যেনো কাঁদি তখন
শুকরগুজারি হয়ে ডাকি তোমায়।
অহংকারী যেনো না হই আমি
নফসের ধোকা থেকে বাঁচিও তুমি।।
০১.১২.২০২০

একখান আছে ভয় / সাইফ আলি

: চাচা,
পরিস্থিতি নাজুক বড়; শান্তিতে যায় বাঁচা?
: শোনেক তালি ভাস্তে,
ত্যালের মতো বিপদ বুঝে পিছলে যাবি আস্তে।
: মন্দ যে কয় লোকে?
: মরবি কি সেই শোকে?
: না, আসলে তুমার কথাই ঠিক।
: এই নীতিতেই চলছে সবাই, দেখনা চতুর্দিক।
তয়,
একখান আছে ভয়;
শেষ বিচারে খাইলে ধরা দিসনে পরিচয়!
২৮.১১.২০