যদি ব্যথা দিয়ে তুমি সুখ পাও / সাইফ আলি

যদি ব্যথা দিয়ে তুমি সুখ পাও তবে ব্যথা দিও
আর যদি অনুতাপে জ্বলেপুড়ে খাক হও
আমার ভালোবাসাা নিও।।

হাঠাৎ আঘাত এসে ভেঙে দিতে চাইলেও
আশায় বেঁধে রাখি বুকের জমিন,
বেঁচে থাক ভালোবাসা, সুখের সকালগুলো
রঙিন ছবিরহাট থাক অমলিন।
অভিযোগ ছুড়ে দিলে দিতে পারো
নির্ভুল নই তো আমিও।।

পাখিদের ঘরগুলো মাঝে মাঝে দেখি আর
ভাবি আমি হয়তো বা পাখিই ছিলাম….
ঘরছাড়া পাখিগুলো যে আশায় ঘর বাঁধে
সে আশায় বেঁচে থাকি আমি প্রতিদিন,
বেঁচে থাক ভালোবাসা, সুখের সকালগুলো
রঙিন ছবিরহাট থাক অমলিন।
কোনো অভিযোগ নেই, যেতে পারো
যতদূরে যেতে চাও প্রিয়।।

২১.০৮.২১

শহরের যতো আলোকসজ্জা ঘিরে / সাইফ আলি

শহরের যতো আলোকসজ্জা ঘিরে
অন্ধকারের পোকাদের ওড়াউড়ি
ঘুমহীন রাত পার হয়ে যায় একা
ভোরের পাখিরা চাদর দিচ্ছে মুড়ি।।

পাশ ফিরে শোও প্রেয়সী আমার শোনো
তোমার উপরে অভিমান নেই কোনো
ভালোবাসা দাও, প্রেম দাও, এসো কাছে
ব্যস্ত শহরে এতোটুকু ছাড়া
প্রেমিক কিভাবে বাঁচে।।
ছাদে যাবে? চলো জোছনায় গিয়ে পুড়ি।

এই যে হাতের আঙুল চরছে তোমার চুলের ভাজে
এতটুকু জেনো শুদ্ধ ভীষণ হজার ভুলের মাঝে
মন খুলে দাও, প্রেয়সী আমার শোনো
তোমার কাছেতো নেই কিছু লুকোনো
সত্যি বলছি ভালোবাসি, ভালোবাসি
তোমার শুদ্ধ, ভুলে হওয়া ভুল,
তোমার কান্না-হাসি।।
এসো একসাথে ডানা মেলি, এসো উড়ি।

০৬.০৮.২১

সব সাধুরাই পার পেয়ে যায় / সাইফ আলি

সব সাধুরাই পার পেয়ে যায় আমার বেলায় ধরা
জীবন আমার কয়লারে ভাই ময়লা দিয়ে ভরা।

এক সাধুজন টেবিল বাজায় অন্যে বাজায় ঢোল
ঘুসের টাকায় গয়না কিনে বিবির ভরায় কোল,
আর আমার বেলায় চাইতে গেলে পাওনা যেটুক যাও-
ধুরও মিঞা কাম করো না; কামাও তো সব ফাও!
বইলা বসে চ্যালারে কয় এইডারে কেউ সরারে ভাই
এইডারে কেউ সরা…

রঙিন জলে ডুব মেরে কেউ বেহুশ হয়ে সাধু
লালশালুতে কপাল কারো বুঝিনা এই জাদু
এই দেখে আর ভাল্লাগে না কাব্যে লাগাই ধ্যান
আমার বেলা পদ্মা শুকোয় বলতে পারিস ক্যান?
যেদিকে চাই খরা রে ভাই যেদিকে চাই খরা…

সাধুজনে কয়না কথা, খায় না নাকি মাছ
তলদে শুনি কুইম্মা গেছে বন বাদাড়ের গাছ!
ক্যামনে কি হয় বোঝার আগেই বাজেট নাকি পাশ
সব সাধুরাই দালান তোলে, আমার বেলায় বাঁশ!
দাদুই শুনে গাইল দিয়ে কয়- সররে ভরাপরা!

০৫.০৮.২১

একইতো পথ / সাইফ আলি

একইতো পথ
কারো জন্য শেষ হয়ে যায়
কেউবা আবার পথের মাঝেই
বার বার নিজেকে হারায়।।

যাত্রা পথে থামলে পথিক
একবার দেখোতো নিজেকে,
তোমার মাঝের পথটা সরল
নাকি গিয়েছে সে বেঁকে;
তুমি যাচ্ছো কোন ঠিকানায়?

ফুল-পাখি-রঙ
আমরা এবং
আমাদের লেখা এ গল্পের
শেষ হবে এখানে কখন কে জানে;
সবই ধুলো হয়ে যায়।

মিলনে-বিরহে, হাসি-কান্নায়
আমাদের সাজানো বাগানে
প্রবেশাধিকার থাকবে কি আর
কালকে সকালে কে জানে!
কেনো কাঁদবো এ মিথ্যে মায়ায়?

২৯.০৭.২১

আঁধারে মিলেছে যে প্রেম / সাইফ আলি

আঁধারে মিলেছে যে প্রেম
সে প্রেমের তুলনা
দিতে পারি না
প্রিয়া, মনে করো না আমি
রমণীর প্রেমে মজে মরেছি;
এ গভীর রাতে শুধু স্রষ্টার কাছে আজ
নিজেকে সমর্পণ করেছি।।

ছন্দ হারিয়ে ফেলি
ভুলে যাই সুর,
তবু এ প্রেমের সুধা
এতো সুমধুর!
যেনো সময়ের সব কাটা টেনে ধরেছি
আর ঝিনুকের মতো করে
নিজেকে নিমজ্জিত করেছি।।

কিভাবে তারকা জপে
ও মধুর নাম,
পাথরের ভাষা যদি
বুঝতো গোলাম!
আমি আঁধারে হারিয়ে যেনো খুঁজে পেয়েছি;
তাঁর অতল প্রেমের ডোরে
আত্মসমর্পণ করেছি।।

০১.০৫.২১

নদী তোর চোরা স্রোতের টানে / সাইফ আলি

নদী তোর চোরা স্রোতের টানে
আমার ভাঙলো ভিটে-বাড়ি
তোর সঙ্গে আমার আড়ি।।

তোর পুরোন প্রেমের ব্যথা
আর বইতে পারি নারে,
তোর দুঃখ আছে যতো
সব আমায় দিয়ে যারে
যা একলা আমায় ছাড়ি।।

আমার সহাই ছিলো যা তার
সবটুকু তুই নিলি
কোন গোপন প্রেমিকারে
বল উজাড় করে দিলি;
তোর জোয়ার নেমে গেলে
তুই তাকেও যাবি ফেলে
তোর গতিবিধির প্রতি আমার
থাকবে নজরদারি।।

২২.০৪.২১

ছল ছল জল দু’চোখে তোমার / সাইফ আলি

ছল ছল জল দু’চোখে তোমার
কোন অপরাধে অপরাধী গো,
কি দাবী নিয়ে এই মিছিলে
বুলেটে জীবন দিতে এসেছো?

কি আছে তোমার, কি দেবে বলো;
তোমার পক্ষে কেনো দেবো রায়?
দু’চোখে ক্ষুধা, মগজে কেবল
লাভ-ক্ষতি অঙ্কেরা সাঁতরায়।।
তুমি তো ক্ষতিতে শুধু ফেসেছো…

কড়া পড়া হাত, ছেড়া চটি পায়
ছেড়া জামা গায়ে তুমি কে মানুষ,
অধিকার চাও শাণিত গলায়!
তুমি কি ফেলেছো হারিয়ে হুশ?
এ স্রোতে কিভাবে তুমি ভেসেছো?

১৮.০৪.২১

যখন সন্ধ্যা নেমে আশে / সাইফ আলি

যখন সন্ধ্যা নেমে আশে
তুমি আমার চারিপাশে
দাও জোনাকবাতি জ্বেলে;
আমি সবটুকু প্রেম জায়নামাজে
দিতাম যদি ঢেলে!!

আমি সর্বনাশে ডুব দিয়েছি প্রভু
আমার অন্ধ চোখের পর্দা তুমি তোলো
আমার এ কাধ বোঝা বইতে না আর পারে
দেখো নুইয়ে কেমন পড়ছি পাপের ভারে
সবাই যে যার মতো যাচ্ছে আমায় ফেলে।

রঙিন প্রজাপতির দল গিয়েছে ফিরে
আমি কাঁদছি ঝরা ‍ফুলগুলোকে ঘিরে
প্রভু গ্রহণ করো কাওসারে নাও ধুয়ে;
আমি শিশুর মতো সব প্রয়োজন থুয়ে
কেবল তোমার ছায়ায় ঘুমোবো ঘুম পেলে।

১১.০৪.২১

এই দৃষ্টির কাছে / সাইফ আলি

এই দৃষ্টির কাছে
বোবা দৃষ্টির কাছে
নত হয়ে আছে পৃথিবী,
তাই চোখে চোখ রেখে আমি
বলতে পারিনি হায়
ক্ষমা করে দিও আমাকে…

নিঃশ্বাসে নিঃশ্বাসে এতো নেয়ামত তার
কতটুকু অর্জন বলো আমাদের
আমার নিজের বলে কতটুকু আছে বলো
ভুলে গেছি এভাবে তাদের?
প্রভূ ক্ষমা করে দিও আমাকে।।

বিশাল এ আকাশের শূন্যতা মেপে মেপে
যে তারা ঘুমিয়ে পড়ে বুকেতে পাথর চেপে
ভাই বলে পরিচয় দিতে যে পারিনি তাকে,
ক্ষমা করে দিও আমাকে…
প্রভূ ক্ষমা করে দিও আমাকে…

মুনাফিক খুঁজে খুঁজে দাঁড়িয়েছি চোখ বুজে
আয়নাতে যখনি দাঁড়াই,
তবু যেনো কেউ ডেকে বলে যায় থেকে থেকে
তার থেকে কিভাবে পালাই?
আমি মুনাফিক পাই নিজেকে।।

১৫.০২.২১

এই রাত পোহালে ভোর / সাইফ আলি

এই রাত পোহালে ভোর
সব সঙ্গী গেছে তোর কোন পথে
তুই একলা এখানে
কার জাগলি আজানে, মনপথে?

আহত পূর্ণিমা, মেঘে ঢেকে যায়
তারারা জ্বলছে না, এখন কি উপায়?
অথচ তোর আঙিনায় ঝরছে সোনা রোদ!
তার একটু যদি তুই রাখিস এই ক্ষতে।

ঝিনুকে পোষা মন
সমুদ্র চেনে না
হোক মুক্তা সে যতই
জীবন তো মাখছে না।

তুই একলা এখানে, চোখদু’টো খোলা
তোর সঙ্গী কে কোথায়, তাদের তো দেখছি না!
অথচ পথতো একটাই একেবেঁকে গেছে
তুই ডাক দে প্রাণপণে তোর মতে।

১১.০২.২১