বিচ্ছিন্ন পায়ের জন্য স্বান্তনা / সাইফ আলি

কবি আঙ্গুল উঁচিয়ে চিৎকার করলেন-
‘শুয়োরের বাচ্চা…’
একপাল শুয়োর চমকে উঠে তাকিয়ে থাকলো ফ্যাল ফ্যাল করে-
তাদের চোখে একটাই প্রশ্ন, আমাদের অপরাধ?

কবি নিজেকে শুধরে নিয়ে আবারো বলে উঠলেন-
‘কুত্তার…’
নিরিহ কুত্তাটা ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে থাকলো- আমার অপরাধ?
কবি ফের নিজেকে সংশোধন করলেন।

কোনো জানোয়ারের সমকক্ষে রাখা সম্ভব হলোনা তাদের;
থাক, তারা মানুষের বাচ্চাই থাক-
বিবেক বোধ বর্জিত মানুষের চাইতে নিচে নামতে পারে
এমন কোনো জানোয়ারের বিচরণ নেই পৃথিবীতে।

*সম্প্রতি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ঘটে যাওয়া অমানবিক কর্মকান্ডের প্রতিবাদে

Advertisements

মন মজেছে শিশির নীরে / সাইফ আলি

মন মজেছে শিশির নীরে
তাই ভীরু পায়ে
এলো তিমিরে ফেরারী হয়েছে বাসনা,
প্রেমের পত্র হাতে ওগো হাওয়া
এ বনে কেনো আসোনা…

চাটুকার এ আঁধার
স্বপ্নীল সওয়ারি হয়ে
ছুঁয়ে দেয় চাঁদ
জোছনা আনে নামিয়ে
তবু বনে মর্মর ব্যথাদের
ব্যাঞ্জনা…
প্রেমের পত্র হাতে ওগো হাওয়া
এ বনে কেনো আসোনা…

এলোমেলো ডাল
নীল আকাশের বুকে
আল্পনা এঁকেছে দেখো
জোনাকির প্রেম
দু’হাত ভরে
সারাগায় মেখেছে দেখো
তবু এই বন… প্রেমহীন তোমাকে ছাড়া…
প্রেমের পত্র হাতে ওগো হাওয়া
আসোনা কেনো আসোনা…

অল্প কিছু গল্প নিয়ে / সাইফ আলি

অল্প কিছু গল্প নিয়ে
জোনাকিটা জ্বলেছিলো সারারাত
ঝাওবন মেতেছিলো চাঁদের আলোয়
বাতাসেরা গেয়েছিলো কিছু গান
আর ছিলো ব্যথাতুর নীলাভ প্রেমের
ফেলে আসা কতগুলো পিছুটান।।

পিছুটান ছিলো তার মেহেদী হাতের
বিচলিত মেঘ টানা কাজল চোখের
বেখেয়ালে সরে যাওয়া কপালের টিপ
পিছুটান ছিলো তার কল্পলোকের।।

তবু সব পিছুটান ভুলে চলে যেতে হয়
আর তাকে বলা হয় প্রস্থান…

কিছু কিছু মেঘ থাকে বর্ষা বিহীন
কিছু কিছু তারকা জ্বালে না আলো
কিছু কিছু হৃদয়ের সূর্য্য সকাল
হয়না মনের মতো উজ্জ্বল

তবু সব জানালা খুলে দিতে হয়
মেনে নিতে হয় একা প্রস্থান…