Covers Available 03 / Saif Ali

 

 

Covers Available 02 / Saif Ali

কোন কাফেলার যাত্রী তুমি / সাইফ আলি

তোমার চোখের তারায় বলো
কোন সে আলোর ঝলকানি
রক্তে তোমার কিসের ঢেউ,
পুষলে বুকে কার বাণী?

কোন কাফেলার যাত্রী তুমি
মুচকি হেসে কাড়লে ঘুম,
বারুদ হয়ে জ্বলতে জানো
প্রেম শেখাতে হও কুশুম!
২৮.০৫.২০

যেনো ভাঙনের পেটে এক ফুল / সাইফ আলি

যেনো ভাঙনের পেটে এক ফুল
ভাসে সোনালী আলোয় তার চুল
যার মুঠো খুলে পাওয়া শাদা মেঘ
জুড়ে বৃষ্টি মেয়ের বায়না।

তার চোখ ভরা স্বপ্নের লাশ!
সে এখনো করেনি তার চাষ
তবু খুবলে ছিঁড়েছে তার বুক
এই সমাজেরই কোনো হায়েনা।

তার রঙচঙে পালকের সুখ
নিয়ে চলে গেলো ডাকাতের দল
তবু আমাদের ভাঙলো না ঘুম
জানি এ ঘুমের নেই কোনো তল।

তার ওড়না পেচানো দুই হাত
আর রেখে যাওয়া অভিসম্পাত
আমাদের ভোগাবে ভীষণ;
কোনো মৃত্যু এভাবে চাই না।।
২৮.০৫.২০

বিচারহীনতার ফলে ধর্ষণ এখন মার্জনীয় অপরাধ। এ দায় গোটা সমাজের।

একটা সবুজ চাদর এনে দাও / সাইফ আলি

একটা সবুজ চাদর এনে দাও
আমি হৃদয়টা জড়িয়ে রাখি
জানালার পর্দা সরাও
শোনো গলা ছেড়ে গাইছে পাখি।।

আজ শেষরাতে নেমেছিলো ঘুম
চোখের পাতায় ঘন সর,
আহা! ফজরে হইনি শামিল
তাই আঁধারেই ডুবে আছে ঘর।।
আমার ওযুর পানি দাও
আমি সেজদায় লুটিয়ে থাকি।

প্রিয় বিছানার নরম আদর
যেনো আমাকে আটকাতে চায়
আমি মুসাফির থাকবো পথে
তবু বার বার পড়েছি ধোকায়।

শোনো বৃষ্টির রুমঝুম রাত
মিষ্টি আলোয় ভেজা ভোর
যদি প্রশ্ন করো আমি কার
তবে একটাই হবে উত্তর।।
সকল প্রসংশা তাঁর
আমি সুখে-দুখে তাঁকেই ডাকি।
২৭.০৫.২০

ভালোবেসেছি তাই তোমার আঁধার / সাইফ আলি

ভালোবেসেছি তাই তোমার আঁধার
চোখের কাজল ভেবে ভুল হয়,
কোনো মিল নেই তবু তোমার কথাই
কালজয়ী কবিতার তুল হয়।।

এই পৃথিবী কোনো সুখের ঠিকানা মনে হয়নি আগে
তবু কেনো যে আমি পথহারা হয়ে যাই তোমার রাগে
তুমি কোকিল তো নও
তবু বসন্ত আসে কেনো তোমার ডাকে!
হায় চারিদিক কেনো তোমারই বিরহে ব্যকুল হয়!!

কিযে সহসা সব এলোমেলো হয়ে গেলো বুঝিনি আমি
শোনো মানবী যদি মন দিই দিয়েছি তা সবচে দামী
তুমি দোকানি তো নও
বড় ভয় হয় দরদামে তেমার সাথে
যদি ঠকে যাই তবে কোনো ব্যথা তার সমতুল নয়।।
২৬.০৫.২০

সবটুকু প্রসংশা তাঁর / সাইফ আলি

বাতাসের ঘর, রৌদ্রের সর
সবুজ বনানী আর মরু প্রান্তর
আকাশের নীল, তারা ঝিলমিল
রূপোলী আলোয় ঘেরা চাঁদ স’দাগর।।
যার দান সে মহান স্রষ্টা আমার
জেনে রাখো সবটুকু প্রসংশা তাঁর।

বাকলের পেট চিরে সবুজের ঘুম
ভাঙালো কে ভেবেছো কি তুমি কখনো
মেঘেদের খামে ভেজা বৃষ্টির ফুল
নতুন কি ছড়া কাটে তুমি কি শোনো।।
ভেবেছো কি কখনো এতো উপহার
কে পাঠায়? এসো গাই প্রসংশা তাঁর।

জালিমের মতো আর না করি জুলুম
আমাদের হাতগুলো ভাঙনের নয়
সত্যের পথে দৃঢ় থাকে যেনো পা
মনে যেনো থাকে শুধু আল্লা’র ভয়।।
তাহলেই ফের হবে পৃথিবী রঙিন
সফলতা দিয়ে লেখা উপসংহার।
২৬.০৫.২০

ঝড়ের মালিক বানের মালিক শোনো / সাইফ আলি

তবুও আসলে ঈদ এই জনপদে
কাতারে কাতারে দাঁড়িয়ে বাঁধবো হাত,
হে প্রভূ তোমার পরীক্ষা হলে শেষ
উপহার দিও কাঙ্ক্ষিত জান্নাত।

ঝড়ের মালিক, বানের মালিক শোনো
শত কষ্টেও অভিযোগ নেই কোনো,
অনুরোধ শুধু সর্বহারার দিকে
ছুড়ে দিও কিছু ফেরদাউসের ফুল।
২৫.০৫.২০

ফুলের ‘পরে বসে ওগো কাঁদছো কেনো মৌ / সাইফ আলি

ফুলের ‘পরে বসে ওগো কাঁদছো কেনো মৌ,
এসো আমার কাছে এসো, এসে চুপটি করে শোও।।

শুনছি নাকি ফুলের বনে রঙ বেরঙের ফুল
সেই ফুলখুকিরা নতুন চাঁদের আলাপে মশগুল,
কেনো তোমার চোখে জল
কোন সে ব্যথা তোমার বুকে করছে টলোমল??
আমার কাছে মন্ত্র আছে দুঃখ ভোলানোও…

আজকে যারা স্বজনহারা তাদের কাছে গিয়ে
তুমি কি এই কষ্ট এলে নিয়ে?
আজ ফিরনী পোলাও পায়েস ছাড়া কাটছে কারো ঈদ
আর শূন্য পড়ে কাঁদছে আমার প্রাণের ও মসজিদ।
এসো অশ্রু ফেলে চাই
খোদার রহম, খোদার করম লুটিয়ে সেজদায়।
নতুন দিনের কাজ যে নতুন স্বপ্ন সাজানোও…
২৪.০৫.২০

একটা চিঠি পাখির নামে একটা চিঠি পাতার / সাইফ আলি

একটা চিঠি পাখির নামে একটা চিঠি পাতার
একটা চিঠি কাব্যে ভরা তোমার খেরো খাতার
কবি ও…. , তুমি অমন উদাস হইলা ক্যান
ভ্রমর হইয়া ফুলের সঙ্গে কথা কইলা ক্যান।।

চাঁদনি রাতে তোমার সাথে জোছনা করে ভাব
শাওন মাসে বৃষ্টি বুঝি রূপসী মেমসাব
তাদের নিয়ে কাব্য গীতে ভরা তোমার খাতা
ওসব নিয়ে একটুও নেই আমার মাথাব্যথা;
কেবল তুমি নিজের দিকে একটু দিও ধ্যান।।

বাবুই পাখির বাসা যেনো আওলা তোমার চুল
তোমার প্রেমে পড়াই আমার হইছে বড় ভুল।

চাওনা কবি দালান বাড়ি, তেলের গাড়ি কও
চাইলে অমন নদীর মতো ক্যামনে তুমি বও
আকাশ-তারার সঙ্গে তোমার ক্যামনে পিরিত হয়
ক্যামনে তারা তোমার সাথে মনের কথা কয়?
আমায় তুমি শিখায় দিও সময় কাটে য্যান।।
১৯.০৫.২০

সন্ধ্যার মুখোমুখি দাঁড়ালেই / সাইফ আলি

সন্ধ্যার মুখোমুখি দাঁড়ালেই
মনে হয় আয়নাতে দেখছি নিজের মুখ,
এইতো এখোনি আমি নিভে যাবো চলে যাবো
রাত্রির হাত ধরে আড়ালেই।।

তবু কেনো মন চায় শতবছরের এক বটের জীবন
পাপের বোঝা নিয়ে কুঁজো হয়ে হেঁটে কিযে শান্তি সে পাই
ফিরতেই হবে যদি কেনো বাঁধে ঘর এই মিথ্যে মায়ায়!?
মৃত্যুকে ছুঁই যেনো হাত বাড়ালেই।।

সকালের ঝলমলে শৈশব শেষ
দুপুরের কোলাহল থেমেছে
বিকেল গড়িয়ে এলো সন্ধ্যা যখন
রাত্রির হাত ধরে নেমেছে।

তবু এই সন্ধ্যায় গোধূলির লাল দেখে ভরে ওঠে মন
মনে হয় ধুপছায়া এলো বুঝি ফিরে, হায়! ভুল ভেঙে যায়
রাত্রির হাত ধরে আমার পৃথিবী ঢোকে ঘুমের পাড়ায়।
ভাঙবে কি ঘুম ফের সকাল হলেই??
১৯.০৫.২০

সুখের পাখি ছোট্ট ডাকে / সাইফ আলি

সুখের পাখি ছোট্ট ডাকে
দুঃখ ডাকে বড়,
আলোর দেখা পায়না রে মন
আঁধার করে জড়ো।।

প্রাপ্তি সাগর মাথায় নিয়ে
খালের দুঃখ জীবনভর,
আকাশ বাতাস থাকবে পড়ে
শেষ ঠিকানা মাটির ঘর।।
মাগফিরাতের আর্জি প্রভূ
আমায় ক্ষমা করো।

যোগ বিয়েগের শাস্ত্রে কেবল
বিয়োগ ব্যথায় কান্দে মন
তাইতো কেবল ভাঙতে থাকে
ভাঙা গড়ার এই ভুবন।

শূন্য শূন্য ডাইনে বায়ে
শূন্য ছাড়া অংক নাই,
যোগ বিয়োগের হিসাব শেষে
শূন্যতাতে মুখ লুকায়।।
এক থেকে নয় কেউ যদি হয়
সঙ্গী, তাকে ধরো।
১৮.০৫.২০